নতুন উবুন্টু ব্যবহারকারীদের সম্মুখীন হওয়া খুব সাধারণ কয়েকটা ঝামেলার সমাধান

নতুন উবুন্টু ব্যবহারকারীদের সম্মুখীন হওয়া খুব সাধারণ কয়েকটা ঝামেলার সমাধান

20 জানুয়ারি 2022

নতুন উবুন্টু ব্যবহারকারীদের সম্মুখীন হওয়া খুব কমন কয়েকটা ঝামেলার সমাধান নিয়ে খানিকটা আলোচনার চেষ্টা।
১। থিমঃ অনেকেই এটা জানে না যে আপনি উবুন্টু কে নিজের ইচ্ছা মত এত বেশি কাস্টোমাইজ করতে পারবেন যা প্রয়োজনের বাইরে। অনেকের ই উবুন্টুর চেহারা সুন্দর না দেখে ব্যবহার করতে ভালো লাগে না। তাদের জন্য একটা টিপ্স। Youtube এ বা google এ একটা সার্চ দিন, ‘Best theme for ubuntu’। এমন সব অসাধারণ থিম পাবেন, আপনার আর Windows এ ফিরে যেতে ইচ্ছা করবে নাহ।

২। স্ক্রীনশটঃ আমরা উইন্ডোজে সাধারণত Snipping Tool বা Lightshot ব্যবহার করে থাকি স্ক্রীনশট তুলার জন্য। Ubuntu user দের জন্য এটার alternative হল Flameshot.
https://flameshot.org

Flameshot install করে ubuntu এর সেটিংস এ গিয়ে Screenshots সেকশন থেকে Print শর্টকাট টা রিমোভ করে দিন। এর পর একদন নিচে গিয়ে add new shortcut দিয়ে একটা নতুন শর্টকাট দিন। শর্টকাটে আপনার keyboard থেকে print বাটন টা সিলেক্ট করে কমান্ডে নিচের কমান্ড টা পেস্ট করে সেভ করুন।flameshot gui -p "/home/$USER/Pictures/"এবার কিবোর্ড থেকে print button press করলে lightshot এর মত করে স্ক্রিনশট তুলতে পারবেন, স্ক্রীনশটে draw করতে পারবেন। ড্রয়িং এর কালার সেট করতে পারবেন স্ক্রিনশট তুলাবার সময় একদম left side এর Tools settings নামক অপশন থেকে। আর ড্রয়িং পেন বড় ছোট করার অপশন add করতে পারবেন শেল এর (উপরের টাস্ক বার এর ) flameshot এর ফ্লেম শট এর আইকন এর অপশন মেনু থেকে configuration থেকে।

Techdiary: article-image

৩। বাংলা টাইপিংঃ Open Bangla keyboard নামে একটি ছোট্ট সফটওয়্যার আছে। গিট হাব থেকে রিলিজ ভার্সন ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিন। এর পর পিসি রিস্টার্ট করে উবুন্টু সেটিংস থেকে Region and languages এ গিয়ে Input source থেকে + বাটনে ক্লিক করে Bangla সিলেক্ট করুন। এরপর সেখান থেকে Bangla (Open Bangla Keyboard) সিলেক্ট করে নিন। ব্যাস। এবার Win + space একবার চাপলে বাংলায় লিখতে পারবেন avro এর মত। আবার Win + space চাপলে english এ লিখতে পারবেন। যারা অভ্রো তে লিখার সময় সাজেশন পছন্দ করেন না, তারা Open Bangla keyboard সফটওয়্যার টা ওপেন করে সেটিংস আইকনে ক্লিক করে Show suggestion টা বন্ধ করে Ok দিন। তাহলে বাংলা লিখার সময় কোন সাজেশন আসবে না। বিঃদ্র- অনেকেই ibus-avro ব্যবহার করেন। তবে আমি ব্যক্তিগত ভাবে সেটা ব্যবহারে কিছু সমস্যা ফেস করেছি। আপনি চাইলেই সেখানে কোন থার্ড পার্টি লে আউট যোগ করতে পারবেন না। যেমনঃ আপনি চাচ্ছেন ফনেটিক লেআউটে (অভ্র) না লিখে বিজয় লেয়াউটে লিখতে। সেক্ষেত্রে বিজয়ের লেআউট ইম্পোর্ট করতে পারবেন না। তাছাড়া ibus avro এর বড় সমস্যা হয় বাংলা লিখার মাঝখানে হঠাৎ কার্সরটা লেখার প্রথমে চলে যায়। তখন মাউস দিয়ে আবার কার্সর ঠিক করে আবার লেখা শুরু করতে হয়। তাই Open Bangla Keyboard টাই রিকমেন্ড করি।https://openbangla.github.io

Techdiary: Typing bangla in ubuntu with open bangla keyboard

Typing bangla in ubuntu with open bangla keyboard

৪। মাইক্রোসফট অফিস, ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর সহ উইন্ডোজের অতি প্রয়োজনীয় সফওয়্যার গুলোঃ উবুন্টু যতই ভালো লাগুক না কেন, মাঝে মাঝে অতি প্রয়োজনীয় কিছু সফটওয়্যার যেগুলো উইন্ডোজে ব্যবহার করা যায়, সেগুলো উবুন্টু বা কোন লিনাক্সের ডিস্ট্রিবিউশনেই নেই। যেমনঃ ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর, মাইক্রোসফট অফিস--এমন সব প্রয়োজনীয় সফটোয়্যার। এই সমস্যা সমাধানের জন্য আছে Play On Linux. অনেকেই Wine ব্যবহার করে থাকেন। Play on Linux রান করার জন্যও Wine দরকার হয় সিস্টেমে। তবে Play on Linux এ আরো অনেক সবুধা পাওয়া যায় যা Default ভাবে Wine এ পাওয়া যায়। Play on Linux দিয়ে মোটামুটি সব অতি প্রয়োজনীয় উইন্ডোজের সফটওয়্যার গুলো খুব ভালো ভাবেই রান করা যায় সরাসরি লিনাক্সে কোন প্রকার ইমুলেটর ছাড়া। মাইক্রোসফট অফিসের ২০১৬ ভার্শন পর্যন্ত সাপোর্ট করে Play on Linux. Adobe Photoshop এর ২০১৫ CC ও ভালো ভাবে সাপোর্ট করে।https://www.playonlinux.com/en

Techdiary: article-image

৫। ভাঙা বাংলা লেখাঃ এই সমস্যা সমাধানের জন্য ছোট্ট একটা সফটওয়্যার ই যথেষ্ট। সেটা হচ্ছে Tweaks. How to install gnome tweaks লিখে গুগোলে সার্চ করুন। কয়েকটা কমান্ড পাবেন। সেগুলো টার্মিনালে কেবল পেষ্ট করুন। এই কাজটা থিম ইন্সটল করতে গেলেও করা দরকার হয়। তাই যদি আগে থেকেই কাস্টোমাইজড থিম ব্যবহার করতে থাকেন, তাহলে সম্ভবত আপনার পিসিতে Tweaks অলরেডি আছে। প্রথমে Siyam Rupali ফন্ট ডাউনলোড করুন গুগোলে সার্চ করে। এরপর Siyam Rupali এর রেগুলার ভার্সন ইন্সটল করুন। এরপর Tweaks এর মেনু থেকে Font এ গিয়ে Interface Text এ Siyam Rupali regular সিলেক্ট করে দিন। আপনার পিসি এর বাংলা ফন্ট লেখা ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু তবুও দেখবেন Google chrome এ সমস্যা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে ক্রোম এর সেটিংস থেকে Appearance এ গিয়ে, সেখান থেকে Customize fonts এ ক্লিক করুন। এবার সেখানে Standard font থেকে Siyam Rupali font টা সিলেক্ট করে দিন। তাহলে বাংলা সব লেখা ঠিক হয়ে যাবে। অন্য কোন ব্রাউজারে সমস্যা করলেও একই ভাবে Default font Siyam Rupali সেট করে দিলে ঠিক হয়ে যাবে।

৬। ডাউনলোড ম্যানেজারঃ উইন্ডোজে IDM (Internet Download Manager) ইউজ করতে করতে অনেকেই উবুন্টুতে IDM এর কোন ভার্সন না পেয়ে ঝামেলায় পড়েন। উবুন্টুর জন্য Free Download Manager (FDM) আছে, IDM এর মতই কাজ করে। FDM এর অবশ্য উইন্ডোজ ভার্সন ও আছে।https://www.freedownloadmanager.org

Techdiary: article-image

৭। অ্যাপ্লিকেশন অটো স্টার্ট সমস্যাঃ কিছু কিছু সফটওয়্যার সব সময় Auto start এর দরকার হয়। Screenshot তুলবার জন্য Flameshot software টি সব সময় চালু থাকা লাগে। এটা ব্যাকগ্রাউন্ডে চালু না থাকলে Flameshort দিয়ে স্ক্রিনশট তুলবার সময় কাজ করে নাহ। তাই যদি প্রতিবার কম্পিউটার চালু করার পর এটা অন করে নিতে হয়, তা বেশ ঝামেলার কারণ হয়। Flameshot অবশ্য অটোমেটিক্যালি অটো স্টার্ট হয় কিন্তু কিছু কিছু সফওয়্যারের সেটিংস থেকে অটোস্টার্ট অন করেলো অটো স্টার্ট হয় না। এটা সলভ করার উপায় হল সেই Tweaks. Tweaks এর মেনু থেকে Startup application থেকে + বাটলে ক্লিক করে যেই অ্যপ্লিকেশন অটোস্টার্টের দরকার, সেটা সিলেক্ট করে দিলেই কাজ হয়ে যায়। এরপর থেকে পিসি অন করার পর অটোমেটিক্যালি সেই সফটওয়্যারটি স্টার্ট হয়। এটা আমার ব্যক্তিগত ভাবে খুব প্রয়োজন হয় কারণ, আমি আপওয়ার্কে মার্কেটপ্লেসে কাজ করি আর আপওয়ার্কের সফটওয়্যার থেকে অটোস্টার্ট অন অরলেও উবুন্টুতে কাজ করে না। তাই Tweaks থেকে অন করে দিলে সব সময় ক্ল্যাইন্টের মেসেজের নটিফিকেশন পাওয়া যায়।

Techdiary: article-image

৮। অতি প্রয়োজনে উইন্ডোজঃ ফুল স্টোরেজে উবুন্টু ইন্সটল করে রাখলে হঠাৎ প্রয়োজনে ইউন্ডোজ দরকার হলে তখন খুব ঝামেলা পোহাতে হয়। তাই উবুন্টুতে VMwere workstation pro ইন্সটল করে Vmwere এ একটা উইন্ডোজ ইন্সটল করে রাখতে পারেন। তাহলে খুব বেশি Windows এর দরকার পড়লে vmwere open করেই কাজ চালিয়ে নিতে পারবেন। আলাদা ভাবে আর Dual Boot এর প্রয়োজন হবে নাহ। বিঃদ্র- virtual box ও ব্যবহার করতে পারেন। তবে আমার কাছে VMwere workstation pro বেশি ভালো লাগে।https://www.vmware.com/.../workstation-pro-evaluation.html

এক্সট্রা- ৮। এ্যন্ডোয়েড মোবাইলকে মাইক্রোফোন বা ওয়েবক্যাম হিসেবে ব্যবহার করাঃ ডেক্সটপ ইউজারদের প্রায়ই এই সমস্যায় পড়তে হয়, ওয়েবক্যামের দরকার বা মাইক্রোফোনের দরকার হলে এন্ড্রোয়েড ফোনকে USB / Wireless মাধ্যমে কানেক্ট করে Mic / cam হিসেবে ব্যবহার করা যায়। উইন্ডোজের ক্ষেত্রে অনেক সফওয়ার পাওয়া যায়। কিন্তু লিনাক্স বেসড সিস্টেমে এমন সফওয়্যার পাওয়া দূষ্কর। এই ক্ষেত্রে DroidCam এর চেয়ে ভালো আর কোন অল্টারনেটিভ পাই নি। যদিও প্রথম ইন্সটল করতে গেলে ড্রাইভার ইন্সটলের ঝামেলা পোহাতে হয়, কিন্তু সব সেটাপ হয়ে গেলে বেশ ভালো কাজ করে DroidCam. দুই ডিভাইসে একই ওয়াইফাই কানেক্টেড থাকলে কানেক্ট যায় ওয়্যারলেস মাধ্যমে। বা ওয়াইফাই না থাকলে USB দিয়েও কানেক্ট করা যায়। এটা আমার ব্যক্তিগত ভাবে খুব ই হেল্পফুল হয়। গুগোলে "use android phone as a webcam / microphone using USB in ubuntu" সার্চ করে ভালো কোন রেজাল্ট পাই নি। তাই এই DroidCam এর বিষয়টাও বললাম।https://github.com/dev47apps/droidcam-হাবিবুল ইসলাম

Techdiary: article-image